বিকাশ পিন লক হলে করণীয় | Bkash Pin Lock

বিকাশ একাউন্টের যেকোনো কাজ সম্পাদন করার সময় আপনি যদি পরপর তিনবার ভুল টাইপ করে দেন, তাহলে আপনার বিকাশ একাউন্ট সাময়িকভাবে বিকাশ পিন লক সমস্যা বেড়েছে।

অর্থাৎ পরপর তিনবার ভুল পিন টাইপ করার পরে বিকাশ কর্তৃপক্ষ আপনার একাউন্ট রক্ষা করার জন্য সাময়িক সময়ের জন্য BKash Pin Lock সমস্যার মধ্যে আপনার অ্যাকাউন্টে ফেলে দেয়।

যখনই আপনার একাউন্টের যে পিন রয়েছে সেই পিন ব্লক হয়ে যাবে তখন এই পিন আনব্লক করতে না পারলে, আপনি অ্যাকাউন্ট থেকে কোন রকমের লেনদেন করতে পারবেন না।

আমাদের মধ্যে যে বা যাদের বিকাশ একাউন্টের পিন লক হয়ে যায়, তাদের বিকাশ পিন ব্লক সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় সম্পর্কে জেনে নেয়া লাগে।

আর আপনার বিকাশ একাউন্টের পিন ব্লক হয়ে যাওয়ার পরে আপনি যদি বিকাশ একাউন্টের পিন লক সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে চান, তাহলে এই আর্টিকেলটি দেখতে পারেন।

বিকাশ পিন লক কেন হয়?

আপনার বিকাশ একাউন্টের যে পিন রয়েছে, সেই পিন ব্লক কিংবা আপনার একাউন্টের পিন টাইপ করার অপশনটি টেম্পোরারি বন্ধ হওয়ার একটাই কারণ বিদ্যমান রয়েছে।

আর যে কারণটি হলো, আপনার বিকাশ একাউন্ট থেকে পরপর তিনবার ভুল পিন টাইপ করা অর্থাৎ আপনি যদি পরপর তিনবার ভুল পিন নাম্বার টাইপ করেন তাহলে একাউন্টে পিন লক হয়ে যাবে।

কাজেই, যখন আপনার কাছে এটা মনে হবে যে আপনি একাউন্টের পিন নাম্বার ভুলে গেছেন, তখন পিন নাম্বার টাইপ করা থেকে বিরত থাকুন এবং কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করুন।

এখন যদি আপনার একাউন্টে পিন লক হয়ে যায় তাহলে এই পিন লক সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় সম্পর্কে জেনে নেয়া লাগবে।

বিকাশ পিন লক থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়

কোন ভাবে আপনার একাউন্টে পিন লক হয়ে গেলে, পিন লক সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য নিন্মলিখিত পদ্ধতি অনুকরণ করুন৷

আশা করি, সহজেই BKash Pin Lock সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

  • সর্বপ্রথম বিকাশের কাস্টমার কেয়ার নাম্বার রয়েছে অর্থাৎ 16247 নাম্বারে কল করুন
  • উপরে উল্লেখিত নাম্বারে কল করার পরে বিকাশের কাস্টমার প্রতিনিধি আপনার সাথে সম্পৃক্ত হবেন। উনাকে আপনার একাউন্টের পিন ব্লক হওয়ার কথা মেনশন করুন।
  • মনে রাখবেন, যে একাউন্টে পিন লক হয়েছে সেই বিকাশ অ্যাকাউন্ট নাম্বার বা সেই ফোন নাম্বার থেকে বিকাশ কাস্টমার কেয়ারে কল করতে হবে।
  • যখনই যাদেরকেই সম্পর্কে অবগত করেন তখন তারা আপনার বিকাশ একাউন্ট তৈরির সময় আইডি কার্ডের নাম্বার এবং আইডি কার্ডে যে নাম আছে সেই নাম দিয়েছিলেন সে সম্পর্কে জানতে চাইবে।
  • এবার আপনি যদি তাদেরকে এই সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সঠিকভাবে দিয়ে দিতে পারেন, তাহলে সহজেই তারা বিকাশ পিন আনলক করে দিবে।

এবং যখন বিকাশ পিন আনলক করে দিবে তখন আপনি যখন বিকাশের মেনু কোড টাইপ করবে তখন নতুন পিন সেটআপ করার অপশন পেয়ে যাবেন।

আর এভাবেই মূলত আপনি চাইলে সহজেই পিন লক হয়ে যাওয়ার পরে নতুন পিন পাওয়ার জন্য আবেদন করতে পারবেন কিংবা পিন রিসেট বা সেটাপ করতে পারবেন।

Also Read:

2 thoughts on “বিকাশ পিন লক হলে করণীয় | Bkash Pin Lock”

    1. উপরে উল্লেখিত নিয়নানুসারে আনলক করে নিন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top